বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১০:৫২ অপরাহ্ন১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

১১ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি

সংবাদ শিরোনাম :
দাউদকান্দি উপজেলা চেয়ারম্যানের সহধর্মিনী রুহানী আমরীন টুম্পার সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাচন ।। নৌকা প্রার্থী মোহাম্মদ আলী বিজয়ী, জামানত হারালেন বিএনপি দাউদকান্দিতে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাচনে নৌকার গণজোয়ার সৃস্টি হয়েছে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে ——–মেয়র নাইম ইউসুফ সেইন বিএনপির সভায় ভোট চাইলেন আওয়ামীলীগ প্রার্থী দাউদকান্দিকে মডেল উপজেলায় রূপান্তর করতে নৌকাকে বিজয়ী করুন। —— মেজর (অব.) মোহাম্মদ আলী দাউদকান্দিতে ভিটামিন এ প্লাস কর্মসূচির উদ্বোধন দাউদকান্দির সুন্দুলপুর ইউপি চেয়ারম্যানের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর ৭৪তম জন্মদিন উদযাপন জাতীয় শোক দিবসে মেঘনা যুবলীগের আলোচনা সভা।
মধ্যপ্রাচ্য উত্তাল, ইউরোপ-এশিয়া থমথমে

মধ্যপ্রাচ্য উত্তাল, ইউরোপ-এশিয়া থমথমে

মেজবাহ আহম্মেদঃ ইরানের ইসলামিক বিপ্লবী গার্ডের কুদস বাহিনীর প্রধান জেনারেল কাশেম সোলাইমানি হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল থেকে উত্তালতর হয়ে উঠছে মধ্যপ্রাচ্য। থমথমে অবস্থা ইউরোপ ও এশিয়ায়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে দু’পক্ষকে শান্ত থাকার পরামর্শ দিয়েছে মার্কিন মিত্র যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স। তবে এ হত্যাকাণ্ডে মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে উঠবে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছে রাশিয়া। হত্যার পক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের সাফাইয়ের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে জাতিসংঘ। রয়টার্স, এএফপি, আল জাজিরা, এনপিআর ও আনন্দবাজার।

ইরানের পররাষ্ট্রনীতিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি জেনারেল সোলাইমানি হত্যার যৌক্তিকতা নিয়ে শুরু থেকেই উঠেছে প্রশ্ন। এর ব্যাখ্যায় পেন্টাগন বলছে ইরাকে মার্কিন কূটনীতিক ও সেনাদের ওপর হামলার পরিকল্পনা করছিলেন তিনি। তাকে হত্যা করে সে পরিকল্পনাকে নস্যাৎ করা হয়েছে।

তবে এ দাবির পক্ষে শক্ত প্রমাণ চাইছে জাতিসংঘ। জাতিসংঘের কর্মকর্তা এজেন্স কলামার্ড বলেন, জেনারেল সোলাইমানি হত্যা নিয়ে পেন্টাগণ যে ব্যাখ্যা দিয়েছে, তা যথাযথ না। আত্মরক্ষার যুক্তিতে এমন হত্যাকাণ্ড কতটা ন্যায়সঙ্গত তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

এ হত্যাকাণ্ডকে মারাত্মক বিপজ্জনক ও বোকামি বলে বর্ণনা করেছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এতে পশ্চিমা গোয়ান্দাদের ধারণা গুপ্তহত্যা বা সাইবার হামলার মাধ্যমে প্রাথমিক জবাব দিতে পারে তেহরান। নিরাপত্তা প্রশ্নে এরই মধ্যে ইসরায়েলে জারি করা হয়েছে সতর্কতা। দ্রুততম সময়ে ইরাক থেকে মার্কিন নাগরিকদের সরে যেতে বলেছে বাগদাদে মার্কিন দূতাবাস।

ভারতে নাশকতার ছক কষছিলেন সোলাইমানি : ট্রাম্প

কাশেম সোলাইমানিকে নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গণমাধ্যমে তিনি দাবি করে বলেন, ইরানে বসেই কাশেম সোলাইমানি দিল্লি ও লন্ডনে হামলায় মদত দিয়েছিলেন।

গত অক্টোবর মাসে পেন্টাগনের নিশানা ছিল আইএস জঙ্গি প্রধান আবু বকর আল বাগদাদি। নতুন বছরের শুরুতেই টার্গেট কাশেম সোলাইমানি। দুটি ক্ষেত্রেই ‘সাফল্য’ মিলেছে ট্রাম্পের।

কেনো সোলাইমানিকে নিশানা করেছিল মার্কিন প্রশাসন তার বিস্তারিত ব্যাখ্যা দিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তুলে আনলেন দিল্লির নামও। ফ্লোরিডার একটি সংবাদমাধ্যমকে দেয়া ট্রাম্পের সাক্ষাৎকারের সূত্র ধরে আনন্দবাজার জানায়, বহু নিষ্পাপ মানুষের মৃত্যু জন্য দায়ী সোলাইমানি। সুদূর দিল্লি ও লন্ডনেও নাশকতার ছকে মদত ছিল তার। আজ আমরা সোলাইমানির চালানো হিংসায় নিহতদের স্মরণ করছি, তাদের শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করছি। এটা ভেবে শান্তি পাচ্ছি যে সন্ত্রাসের রাজত্ব শেষ হয়ে গিয়েছে। তবে দিল্লিতে কোন হামলার পেছনে সোলাইমানির মদত ছিল তা নির্দিষ্ট করে কিছু বলেননি ট্রাম্প।

গত ২০ বছর ধরে মধ্যপ্রাচ্যে সোলাইমানি অস্থিরতা তৈরি করেছিলেন বলে অভিযোগ করেছেন ট্রাম্প। কয়েক দিন আগেই বাগদাদে মার্কিন দূতাবাসে হামলা হয়েছিল। তার জন্য সোলাইমানিকে দায়ী করে ট্রাম্প বলেন, সাম্প্রতিককালে ইরাকে রকেট হামলায় এক মার্কিন নাগরিকের মৃত্যু হয়েছিল। গুরুতর জখম হয়েছিলেন আরও চার মার্কিন নাগরিক। বাগদাদে মার্কিন রাষ্ট্রদূতের অফিসেও হামলা  হয়েছিল। এসবের পেছনে ছিল সোলাইমানির হাত।

শুক্রবারের ড্রোন হামলা নিয়ে কার্যত বুক ঠুকেই ট্রাম্প দাবি করেছেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যা করেছে তা অনেক আগেই করা উচিত ছিল। তাহলে অনেকের জীবন বাঁচানো যেতো। অতি সম্প্রতি ইরানে বিক্ষোভকারীদের দমনপীড়ন করা হয়েছিল সোলাইমানির নেতৃত্বেই। তাতে কয়েক হাজার নিষ্পাপ মানুষকে অত্যাচার করা হয়েছিল ও মেরে ফেলা হয়েছিল।

শুক্রবারের হামলার রেশ থাকতে থাকতেই শনিবার (৪ জানুয়ারি ) নতুন করে হামলা চালানো হয় মার্কিন ড্রোন। ইরাকের আধাসেনা বাহিনী হাশেদ-আল-শবাবির একটি কনভয়ে হামলা চলে। তবে এই হামলায় প্রকৃত হতাহতের সংখ্যা এখনও স্পষ্ট নয়। ধারণা করা হচ্ছে ৬ থেকে ৮ জন নিহত হয়েছেন।

হামাসের নিন্দা

সোলাইমানি হত্যাকে কাপুরুষিত উল্লেখ করে এর নিন্দা জানিয়েছে হামাস। হামাসের মুখপাত্র হাজিম কাশেম বলেন, ফিলিস্তিনিদের অধিকার আদায়ের পক্ষে নিবেদিতপ্রাণ ছিলেন জেনারেল সোলাইমানি। আমেরিকার এই বর্বর হামলার উদ্দেশ্য একটা— আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা তৈরি করা।

শান্ত থাকার পরামর্শ মিত্র রাষ্ট্রের

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে দু’পক্ষকে শান্ত থাকার পরামর্শ দিয়েছে মার্কিন মিত্র যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স।

ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জুনিয়র মিনিস্টার এমিলি দে মন্টচেলিন বলেন, ভয়ঙ্কর এক বিশ্বে বাস করছি আমরা। সামরিক আগ্রাসন সবসময়ই বিপজ্জনক। সেটা পৃথিবীর যে প্রান্তেই ঘটুক। আমরা সবসময় তাই স্থিতিশীলতার পক্ষে।

পারমাণবিক অস্ত্রধর ইরানের এই গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিকে হত্যায় মধ্যপ্রাচ্যে সঙ্কট আরও বাড়বে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছে ভ্লাদিমির পুতিনের রাশিয়া।

হত্যার সিদ্ধান্ত হয় নির্জন কক্ষে

জেনারেল সোলাইমানি হত্যার সিদ্ধান্ত হয় এক নির্জন কক্ষে। ফ্লোরিডার মারা-আ-লাগো রিসোর্টে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে বৈঠক করে এ সিদ্ধান্ত নেন প্রসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

একাধিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে ওই বৈঠকের খবর প্রকাশ করে বলা হয়, গত রোববারেও (২৯ ডিসেম্বর) তার জাতীয় নিরাপত্তা দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্যদের নিয়ে ফ্লোরিডার মারা-আ-লাগো রিসোর্টে বৈঠকে বসেন ট্রাম্প।

বৈঠকে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মার্ক এসপার, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা রবার্ট ও’ব্রিয়েন, আর্মি জেনারেল মার্ক মিল্লেই উপস্থিত ছিলেন।

খবরে প্রকাশ, ওই বৈঠক শেষে সোলাইমানিকে হত্যার নির্দেশ দেন ট্রাম্প।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কর্মকর্তাদের বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এমন খবর দিয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, গোপন আলোচনার জন্য নির্মিত নিরাপদ স্থান রিসোর্টের ওই জানালাবিহীন কক্ষে উপদেষ্টাদের সঙ্গে বৈঠক করেন ট্রাম্প।

৬২ বছর বয়সী ইরানি জেনারেলকে হত্যার পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলছে, ইরাক, সিরিয়া ও লেবাননসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন জায়গায় যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিক ও সামরিক লোকজনের ওপর হামলার পরিকল্পনা করছিলেন সোলাইমানি। তবে হামলার পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন নিয়ে এখনও বিস্তারিত কিছু জানায়নি মার্কিন প্রশাসন।

ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রকে আরেকটি যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছে : ডেমোক্রেট পার্টি

জেনারেল সোলাইমানি হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন মার্কিন ডেমোক্রেট পার্টির একাধিক নেতা। তারা বলছেন, ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রকে আরেকটি যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন।

মার্কিন ডেমোক্রেটিক পার্টির একাধিক নেতা জো বাইডেন, বার্নি স্যার্ন্ডার্স ও এলিজাবেথ ওয়ারেনসহ শীর্ষ নেতারা এই হামলার বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা জানান।

তারা বলছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রকে মধ্যপ্রাচ্যে আরেকটি যুদ্ধের মধ্যে ঠেলে দিচ্ছেন। ট্রাম্পের বেপরোয়া, অনিরাপদ এবং অবিবেচক বলেও উল্লেখ করেন তারা।

সোলাইমানি হত্যা আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ : ইরান

সোলাইমানিকে হত্যার ঘটনাকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ বলে উল্লেখ করেছে ইরান। তাই সময়মতো এর উপযুক্ত জবাব দেয়ারও হুমকি দিয়েছে তেহরান।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ সোলাইমানি হত্যার ঘটনাকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ উল্লেখ করে বলেছেন, যথাসময়ে যুক্তরাষ্ট্রকে এর সমুচিত জবাব দেয়া হবে। শুধু তাই-ই নয় যুক্তরাষ্ট্র যা করেছে তাতে যে কোনও স্থানে যে কোনও সময়ে এর উপযুক্ত জবাব দেয়ার অধিকার আছে ইরানের।

তিনি বলেন, মার্কিন অপপ্রচার কিংবা ভয়-ভীতি ইরানকে টলাতে পারবে না। তাই আমাদের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আল খামেনির হুমকি অনুযায়ী সঠিক সময়ে এবং সঠিক জবাবই যুক্তরাষ্ট্রকে বুঝিয়ে দেয়া হবে।

ইরানের সাথে যুদ্ধে জড়াতে চাই না : ট্রাম্প

সোলাইমানিকে বিশ্বের শীর্ষ সন্ত্রাসী আখ্যা দিয়ে মার্কিন হামলার সাফাই দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

তিনি বলেন, ইরানের সাথে যুদ্ধে জড়াতে চাই না। তবে তেহরানের আগ্রাসী আচরণ বন্ধে বদ্ধপরিকর ওয়াশিংটন।

ট্রাম্প বলেন, গতকাল (শুকবার, ৩ জানুয়ারি) যে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তার লক্ষ্য যুদ্ধের সমাপ্তি। নতুন করে যুদ্ধ শুরুর কোনও পরিকল্পনা যুক্তরাষ্ট্রের নেই। ইরানের জনগণের প্রতি আমার কোনও বিদ্বেষ নেই। এমনকি ইরানের শাসন-ব্যবস্থার পরিবর্তনেও আমি আগ্রহী নই। যদিও ইরানের আগ্রাসী আচরণ আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি।

মধ্যপ্রাচ্যে ৩ হাজার সেনা মোতায়েন

বাড়তি নিরাপত্তায় মধ্যপ্রাচ্যে নতুন করে ৩ হাজার সেনা মোতায়েন করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এর আগে ইরান ও যুক্তরাষ্ট্র সঙ্কট উসকে দেয়ার ইচ্ছা নেই বলে মন্তব্য করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। তবে সোলাইমানির হত্যাকে আইনসঙ্গত বলে দাবি করেন পম্পেও।

বিশ্লেষকদের মতে, সোলাইমানি হত্যা পর নতুন মোড় নিতে যাচ্ছে মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতি। চাপে পড়বে হামাস ও হিযবুল্লাহ। নতুন করে সংগঠিত হতে পারে আইএস।

ট্রাম্পের ভূয়সী প্রশংসায় নেতানিয়াহু

কাশেম সোলাইমানিকে হত্যার ঘটনায় মুখ খুলেছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু।

গ্রিস সফর সংক্ষিপ্ত করে দেশে ফিরে বিমান থেকে নেমে গণমাধ্যমের কাছে কাশেম সোলাইমানির মৃত্যুতে ট্রাম্পের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু।

তিনি বলেন, ইসরায়েলের যেমন আত্মরক্ষার অধিকার আছে, ঠিক তেমনি যুক্তরাষ্ট্রেরও একই অধিকার আছে। কাশেম সোলাইমানি আমেরিকান নাগরিকসহ আরও অনেক নিরপরাধ মানুষের মৃত্যুর জন্য দায়ী। সে এমন আরও হামলার পরিকল্পনা করেছিল।

সোলাইমানিকে হত্যার ঘটনায় খুশি হলেও ইরানের সম্ভাব্য হামলার ঝুঁকিতে থাকার বিষয়টি চিন্তায় ফেলেছে ইসরায়েলি নীতি-নির্ধারকদের।

ইসরায়েলে একাধিক সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে এনপিআর জানায়, ইসরায়েলিরা সোলাইমানির হত্যায় খুশি হয়েছে। তবে একই সাথে শঙ্কা দেখা দিয়েছে এই হত্যার পাল্টা জবাব হিসেবে ইরান ইসরায়েলি স্বার্থকে বেছে নেয় কিনা।

ইসায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের সাবেক ডেপুটি হেড রাম বেন বারাক ইসরায়েল রেডিওকে বলেছেন, এটা (সোলাইমানির হত্যাকাণ্ড) ঘটেছে ভালো খবর এবং আমাদের এই কাজ করতে হয়নি এটাও ভালো খবর। কিন্তু আমাদের পরবর্তী পরিস্থিতির জন্য সতর্ক থাকতে হবে। ইরানিরা পাল্টা জবাব দিতে এক থেকে দুই মাস সময় নিতে পারে। কোনও সন্দেহ নেই তারা পাল্টা আঘাত করবে।

এনপিআর জানায়, এরই মধ্যে নিজেদের মধ্যে সতর্কতা জারি করেছে তেলআবিব। দুনিয়াজুড়ে থাকা দেশটির সব দূতাবাসে এরই মধ্যে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। সোলাইমানি হত্যার পর সম্ভাব্য হামলার আশঙ্কায় সীমান্ত সংলগ্ন একটি রিসোর্ট বন্ধ করে দিয়েছে ইসরায়েল।

যুক্তরাষ্ট্রের বড় শহরগুলোতে সতর্কতা জারি

পাল্টা হামলার শঙ্কায় কয়েকটি শহরে সতর্কতা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। স্পর্শকাতর জায়গাগুলোতে নিরাপত্তাও বাড়িয়েছে দেশটি।

বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) রাতে বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত ইরানি জেনারেল কাশেম সোলাইমানিকে হত্যার প্রতিশোধ নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আল খামেনি। তিনি বলেছেন, যারা এই হত্যাকাণ্ডের জন্য দায়ী, সেসব অপরাধীদের জন্য কঠিন প্রতিশোধ অপেক্ষা করছে।

নিউ ইয়র্কের মেয়র বিল ড্য ব্লাসিনো জানান, যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিতে ইরান বা তাদের সন্ত্রাসী মিত্রদের যে কোনও হামলা ঠেকাতে আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে।

টুইট বার্তায় তিনি বলেন, এই হুমকি মোকাবেলায় দীর্ঘদিন সজাগ থাকবে শহর কর্তৃপক্ষ। গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোর নিরাপত্তা বাড়াতে পুলিশের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের হোমল্যান্ড সিকিউরিটি দফতরের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী শাদ ওলফ বলেছেন, আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী ও অন্যদের সঙ্গে মিলে দেশজুড়ে কাজ করছে তার দফতর। এখন পর্যন্ত কোনও হুমকি শনাক্ত না হলেও যে কোনও কিছুর জবাব দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) রাতে সিএনএনকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে জাতিসংঘে ইরানি রাষ্ট্রদূত মজিদ তাখত বলেন, ইরানের জনগণের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এটা একটা যুদ্ধের শামিল।

তিনি বলেন, আমাদের এক শীর্ষ জেনারেলের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে তাকে গুপ্তহত্যার মাধ্যমে গত রাতে তারা (যুক্তরাষ্ট্র) সামরিক যুদ্ধ শুরু করেছে। এর জবাবে ইরান কী করবে বলে আশা করা যায়? আমরা নীরব থাকতে পারি না। আমাদের পদক্ষেপ নিতে হবে।

ইরানি এই কূটনীতিক আরও বলেন, যা ঘটলো তাতে আমরা চোখ বন্ধ রাখতে পারি না। নিশ্চিতভাবেই এর প্রতিশোধ নেয়া হবে, কঠিন প্রতিশোধ।

মঙ্গলবার দাফন, জানাজা পড়াবেন খামেনি

ইরানি শীর্ষ জেনারেল কাশেম সোলাইমানি ও ইরাকি কমান্ডার আবু মাহদি আল মুহান্দিসের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে ইরাকের বিভিন্ন শহরে লাখ লাখ মানুষ সমবেত হন।

আল জাজিরা আরবির খবরে প্রকাশ, শনিবার (৪ জানুয়ারি) ইরাকের কূটনৈতিক এলাকা গ্রিন জোনে একটি জানাজা অনুষ্ঠিত হওয়ার পর কাজেমাইন শহরে লাখ লাখ মানুষ তাদের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানায়।

বাগদাদে অবস্থিত ইরানের দূতাবাস জানায়, ইরাকি জনগণের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে জেনারেল সোলাইমানিসহ ইরানি শহীদদের মৃতদেহও কারবালা এবং নাজাফে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে ইরাকি জনগণ তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন এবং ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী শোক পালন করবেন।

তিন দিনের শোক পালন শেষে নিজ শহর কেরমানে নিহত বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর কমান্ডার ও আল-কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাশেম সোলাইমানিকে মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) দাফন করা হবে।

শনিবার (৪ জানুয়ারি) রাতেই তার মরদেহ তেহরানে নিয়ে আসার কথা রয়েছে। এরপর ইমাম রেজার মাজারে ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতার জন্য শিয়াদের পবিত্র শহর মাশদাদে নিয়ে যাওয়া হবে।

বিপ্লবী গার্ডস জানায়, সোমবার (৬ জানুয়ারি) সকালে তেহরানে একটি শোকানুষ্ঠান হবে। এরপর তার মরদেহ মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) সকালে কেরমানে দাফন করা হবে।

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আল খামেনি  জানাজা পড়াবেন বলে জানায় বিপ্লবী গার্ডস।

 

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  





themesba-zoom1715152249
© "আমাদের দাউদকান্দি" কর্তৃক সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত।
Developed By: Nagorik IT